‘সরি’ বললেন আকবর আলী


উদ্‌যাপনে লাগাম দিতে না পারায় দুঃখপ্রকাশ করেছেন বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ দলের অধিনায়ক আকবর আলী। ছবি: আইসিসি

ম্যাচ শেষে উদ্‌যাপনের সময় আবেগে লাগাম দিতে পারেননি বাংলাদেশ ও ভারতের  অনূর্ধ্ব-১৯ ক্রিকেটাররা। সে ঘটনায় দুঃখ প্রকাশ করেছেন বাংলাদেশ যুবদলের অধিনায়ক আকবর আলী।

কাল পচেফস্ট্রুমে বাংলাদেশের ক্রিকেট ইতিহাসের অন্যতম সেরা অধ্যায়টি লিখেছেন আকবর আলীরা। ফেবারিট ভারতকে হারিয়ে প্রথমবারের মতো অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ ক্রিকেট জিতেছে বাংলাদেশের যুবারা। ম্যাচ শেষে শিরোপা উদ্‌যাপন করতে গিয়ে আবেগে লাগাম দিতে পারেননি বাংলাদেশের অনূর্ধ্ব-১৯ অনেক খেলোয়াড়। যে ঘটনায় ম্যাচ–পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে দুঃখ প্রকাশ করেছেন বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ দলের অধিনায়ক ও ফাইনালে জয়ের নায়ক আকবর আলী।

রকিবুল হাসান জয়সূচক শেষ রানটি নেওয়ার পর উল্লাসে মাতেন বাংলাদেশের খেলোয়াড়েরা। এ সময়ে ভারতীয়দের সঙ্গে কথা-কাটাকাটি, এমনকি সামান্য ধাক্কাধাক্কিও হয়েছে। পুরো ঘটনা নিয়েই আজ তদন্ত প্রতিবেদন দেওয়ার কথা আইসিসির ম্যাচ রেফারি গ্রায়েম ল্যাব্রয়ের।

ফাইনালে ঠান্ডা মাথায় ৪৩ রানের অসাধারণ এক ইনিংস খেলা আকবর বললেন, যা হয়েছে তা দুঃখজনক, ‘যা হয়েছে, তা হওয়া উচিত ছিল না। আমি জানি না ঠিক কী হয়েছে। আমি জিজ্ঞেসও করিনি কী হচ্ছে। তবে এ তো জানাই, ফাইনালে আবেগ-টাবেগ একটু বেশি থাকে। ছেলেরাও একটু বেশি উত্তেজিত থাকে, আবেগ ধরে রাখতে পারে না। তবে তরুণ খেলোয়াড় হিসেবে এমনটা হওয়া উচিত নয়। যেকোনো অবস্থায়, যেকোনো আচরণে আমাদের উচিত প্রতিপক্ষকে সম্মান দেখানো। খেলাটার প্রতিও শ্রদ্ধা থাকা দরকার।’

ক্রিকেট যে ভদ্রলোকের খেলা, সেটিও মনে করিয়ে দিয়েছেন আকবর, ‘ক্রিকেট ভদ্রলোকের খেলা হিসেবেই পরিচিত। তাই আমি বলছি, আমার দলের পক্ষ থেকেই বলছি, আমি দুঃখিত।’

ভারত অনূর্ধ্ব-১৯ দলের অধিনায়ক প্রিয়ম গার্গ পুরো ঘটনার জন্য বাংলাদেশের খেলোয়াড়দেরই দোষ দিয়েছেন, ‘আমরা স্বাভাবিকই ছিলাম। আপনি কোনো দিন জিতবেন, কোনো দিন হারবেন—এটাই তো খেলার স্বাভাবিক নিয়ম। তবে ওঁদের প্রতিক্রিয়া কদর্য ছিল। এমনটা হওয়া উচিত ছিল না। যা–ই হোক, এটি বড় কিছু না।’

তবে ভারতীয় দলটির ম্যানেজার অনিল প্যাটেল জানিয়েছেন, ম্যাচ রেফারি ল্যাব্রয় এসে নাকি তাঁদের জানিয়েছেন, আইসিসি পুরো ঘটনার তদন্ত করছে।





Source from @ www.prothomalo.com

Leave a Reply